বাইসাইকেলে তেঁতুলিয়া থেকে টেকনাফ ভ্রমণ

শেয়ার করুন
দেশের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে বাইসাইকেলে এ ধরনের ভ্রমণকে ‘ক্রসকান্ট্রি রাইড’ বলা হয়। তেঁতুলিয়া থেকে ১৪ ফেব্রুয়ারি যাত্রা শুরু করে ২১ তারিখ টেকনাফ শেষ করে এই বাইসাইকেল ভ্রমণ, প্রায় ১৬ টি জেলায় ১০৫৭ কিলোমিটার রাস্তা ৮ দিনে শেষ করে এই এক্সপেডিশন সম্পূর্ণ করে হাফিজউদ্দিন, দেশের সাম্প্রতিক মানুষকে ভ্রমণে উৎসাহিত করতে এবং মানুষের মাঝে ভ্রমণ সচেতনতা সৃষ্টি ও সাইক্লিংয়ের প্রতি মানুষকে উৎসাহিত করার লক্ষে সে এক বাইসাইকেল চালিয়ে এক হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দেন।
গত ১৩ ফেব্রুয়ারি রাতে সে ঢাকা থেকে বাসযোগে পঞ্চগড়ের উদ্দেশ্যে যাত্রা করে। পরদিন ১৪ ফেব্রুয়ারী সকাল ৬:৩০ মিনিটে তেঁতুলিয়া জিরো পয়েন্ট থেকে বাইসাইকেলে তাদের ক্রসকান্ট্রি রাইডের সূচনা। পর্যায়ক্রমে পঞ্চগড়, রংপুর, গাইবান্ধা, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, রাজবাড়ী, ফরিদপুর, মাদারীপুর, শরীয়তপুর, চাঁদপুর, লক্ষীপুর, নোয়াখালী, ফেনী, চট্রগ্রাম ও কক্সবাজার জেলা ভ্রমণ শেষে ২১ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার বিকেলে কক্সবাজারের টেকনাফ জিরো পয়েন্টে সে পৌঁছান। গুগল ম্যাপে তেঁতুলিয়া বাংলাবান্ধা থেকে টেকনাফের দূরত্ব ৯২১ কিলোমিটার হলেও, হাফিজকে পাড়ি দিতে হয়েছে ১ হাজার ৫৭ কিলোমিটার রাস্তা, গড়ে প্রতিদিন তার ১৩২ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে প্রায় ১০ ঘন্টার ও বেশি সময় সাইক্লিং করতে হয়েছে । দুরত্ব মাপতে পুরো পথে সে ব্যবহার করেছে স্ট্রাভা অ্যাপ (https://strava.app.link/UgGdU2kbg4)
এ সময় তার রুটিন ছিল সকাল ৮টা থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত সাইক্লিং। পথে খেয়ে নিতেন দুপুরের খাবার, খাবারের পর আধা ঘণ্টা বিশ্রাম নিতেন রাস্তার পাশেই। পথেই দর্শনীয় স্থান গুলো ঘুরে দেখেন তিনি, আট দিনের এই সাইকেল ভ্রমণে হাফিজকে পড়তে হয়েছে অনেক সমস্যায়। রাতে থাকার ব্যাপারেও পোহাতে হয়েছে নানা সমস্যা।
হাফিজউদ্দিন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্র্সিটির কম্পিউটার সাইন্স ডিপার্টমেন্ট এর একজন ছাত্র পাশাপাশি জব করছে ৮ দিনের ছুটি নিতে পোহাতে হয়েছে আরো বড় সমস্যা, সব কিছু ব্যবস্থা করে বেরিয়ে পড়েন এই তরুণ একাই ।
হাফিজ বলেন, আমি আগেও বাইসাইকেলে ৬৪ জেলা ভ্রমণ করেছি কিন্তু এইবারের ‘তেঁতুলিয়া থেকে টেকনাফ রাইড টা ছিল অন্য রকম, এবারের ভ্রমণের বেশিরভাগ রাস্তা ছিল বিভিন্ন অজপাড়া গ্রামের মধ্যে দিয়ে সেখানকার বেশিরভাগ রাস্তায় ছিল ভাঙা সেই গ্রামের মানুষ সম্পর্কে জানা নতুন এক অভিজ্ঞতা যেটা হয়তো সাইকেল ভ্রমণ বাদে অন্য কোনো ভাবে সম্ভব হতো না, তেঁতুলিয়া থেকে টেকনাফ সাইক্লিং করে যা শিখলাম, সাইকেলে ভ্রমণ হচ্ছে অন্য রকম এক ধরণের অভিজ্ঞতা সেখানে প্রতিটি ধাপে ধাপে মিশতে হয় নানা রকম সংস্কৃতি এবং পরিবেশ এর সাথে যেটা অন্য কোনো ভাবে ভ্রমণ করে পাওয়া খুব সহজ হবে না, আমাদের দেশ টা অনেক সুন্দর এবং দেশের মানুষ গুলো আরো সুন্দর বিভিন্ন্য জেলার সাইক্লিং সংগঠন এবং মানুষের মধ্যে একটি ভালো সম্পর্কে তৈরী করে এই সাইক্লিং, এই রাইডে যদিও আমি এক ছিলাম কিন্তু আমাকে কখনোই মনে হয়নি আমি এক, পথেঘাটে অনেক মানুষ সবাই সহযোগিতা করার জন্য এগিয়ে আসবে।
ভবিষ্যত পরিকল্পনার কথা তিনি জানান, ভ্রমণ কে আরো বেশি সহজ এবং দেশের প্রতিটি জায়গা কে ভ্রমণ পিপাসু মানুষের কাছে গুরুত্ত্বপুর্ণ করে তোলার লক্ষে বাংলাদেশের ৪৯২ টি উপজেলা সাইক্লিং করে ভ্রমণ করবেন। ভবিষ্যতে দেশের বাহিরে সাইক্লিং করার পরিকল্পনার কথাও জানান তিনি।
ইয়ুথ ভিলেজ/বিশেষ প্রতিবেদক/হাফিজউদ্দিন

আলোচনা করুন

avatar
  Subscribe  
Notify of